শাকুর মজিদ

স্থপতি, লেখক-নাট্যকার-আলোকচিত্রী-চলচ্চিত্র নির্মাতা

শাকুর মজিদ (জন্ম ২২ নভেম্বর, ১৯৬৫) হলেন একজন বাংলাদেশী স্থপতি, নাট্যকার, তথ্যচিত্র নির্মাতা ও চিত্রগ্রাহক। ভ্রমণকাহিনী ও জীবনী সাহিত্যে অবদানের জন্য তিনি ২০১৮ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন।

জনপ্রিয় বই

ছাত্রকাল

বহুমুখি প্রতিভার অধিকারী শাকুর মজিদ এক অনুকরণীয় চরিত্র। সিলেটের এক প্রত্যন্ত গ্রামে জন্ম নিয়েও কেবল নিজ মেধাগুণে দেশসেরা দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়াশুনা করে জীবনে আজ সু-প্রতিষ্ঠিত।
১৯৭৮ সালে গ্রাম ছেড়ে সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তি হয়েছিলেন ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজে। সেখানে তাঁর প্রথম বছরটি ছিলো আধাসামরিক এই আবাসিক শিক্ষায়তনে সহপাঠি ও পরিবেশের সাথে অভিযোজিত হবার সময়। এ নিয়ে লিখেছেন ক্লাস সেভেন ১৯৭৮। অষ্টম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর ঘটনাপুঞ্জ এসেছে ক্যাডেটের ডায়েরিতে।
১৯৮৪ সালে উচ্চমাধ্যমিক শেষে ভর্তি হন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্থাপত্যে পড়াশুনার সময় দেশের বিরূপ রাজনৈতিক পরিবেশেও অর্থ উপার্জনের জন্য টিউশনির পাশাপাশি বেছে নেন সংবাদপত্রে লেখালেখি আর আলোকচিত্রণের পেশা। এই সংগ্রামী জীবনের কথা তিনি লিখেছিলেন তাঁর বুয়েটকাল গ্রন্থে।
শাকুর মজিদ আজ দেশের নামকরা স্থপতি, বহু পরস্কারে ভূষিত লেখক, নাট্যকার, আলোকচিত্রী ও চলচ্চিত্র নির্মাতা। এটুকু হবার পেছনে তাঁর ছাত্র জীবনের যে ভূমিকা ছিলো তা নিয়ে যে তিনটি গ্রন্থ লিখেছিলেন তারই সংকলন এই ছাত্রকাল ট্রিলজি।
যেকোন সৎ-সংগ্রামী-স্বপ্নবাজ তরুণ এই ত্রয়ীগ্রন্থ পড়ে জীবনকে নতুনভাবে গড়তে পারেন।

বই: ছাত্রকাল
লেখক: শাকুর মজিদ
বিষয়: আত্মজৈবনিক
প্রচ্ছদ : আনিসুজ্জামান সোহেল
প্রকাশক: কথাপ্রকাশ
প্রকাশকাল: ২০২০ ইং

View Book

Humayun Nama

একসময়ের হুমায়ূন ভক্ত অতি সাধারণ পাঠক, নতুন ঢাকায় আসা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ছাত্র শাকুর মজিদ সাংবাদিকের ভান ধরে হুমায়ূন আহমেদের কাছে গিয়েছিলেন মূলত তাঁকে আরো বেশি করে জানতে, ১৯৮৬ সালে। সেই থেকে সূচনা হয় সম্পর্কের। এর পরে মাঝে মাঝে তাঁদের মধ্যে দেখা সাক্ষাৎ হতো, কিন্তু অন্তরঙ্গ সম্পর্ক গড়ে ওঠে নাই । এর প্রায় দুই যুগ পরে, ২০০৮ সালে শাকুর মজিদের লেখা একটি বই পড়ে হুমায়ূন আহমেদ তাঁকে বাসায় দাওয়াত দিলে সূচনা হয় আরেক পর্বের। অত্যন্ত ঘনিষ্টদের তালিকায় প্রায় অপরিহার্য হয়ে ওঠেন শাকুর মজিদ এবং এই ঘনিষ্টতা অব্যাহত থাকে ২০১২ সালে হুমায়ুন আহমেদের মৃত্যুর আগে পর্যন্ত।
হুমায়ূন আহমদের স্মৃতিকথা লিখতে গিয়ে শাকুর মজিদ তার নিজেরও একসাথে বেড়ে ওঠার কাহিনী শুনিয়েছেন। এ নিয়ে ‘প্রথমা’ থেকে প্রকাশিত হুমায়ূন আহমেদ, যে ছিলো এক মুগ্ধকর এবং ‘অন্যপ্রকাশ’ থেকে-নুহাশপল্লীর এইসব দিনরাত্রি নামে দুটো বই ছাপা হয়। হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুপরবর্তি নানা সময়ের যে ঘটনাগুলো বিভিন্ন পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল তা নিয়ে ‘গ্রন্থকুটির’ বের করেছিল অভিনেতা হুমায়ূন ও অন্যান্য। মূলত এই তিনটি বই পাঠকদেরকে এক মলাটে দেয়ার জন্য প্রকাশ হলো শাকুর মজিদের হুমায়ূননামা ট্রিলজি।

বই: হুমায়ুননামা
লেখক: শাকুর মজিদ
বিষয়: আত্মস্মৃতি/স্মৃতিচারণ মূলক
প্রচ্ছদ : আনিসুজ্জামান সোহেল
প্রকাশক: কথাপ্রকাশ
প্রকাশকাল: ২০২০ ইং

View Book

বুয়েটকাল

আত্মজৈবনিক এই বইটি আমার আগের ‘ক্লাস সেভেন ১৯৭৮’ ও ‘ক্যাডেটের ডায়েরি’র সিক্যুয়াল। ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনার বর্ণনার পাশাপাশি সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক অবস্থার বিবরণ লিখেছি। সেই সময়ে রাজধানীতে অভিবাসিত হয়ে নাগরিক পরিবেশে অভিযোজিত হওয়ার কাহিনী শোনাতে শোনাতে আমি আসলে একটা কালকে ধরে তুলেছি এ বইয়ে।

বই: বুয়েটকাল
লেখক: শাকুর মজিদ
বিষয়: আত্মজৈবনিক
প্রচ্ছদ : মাসুম রহমান
প্রকাশক: কথাপ্রকাশ
প্রকাশকাল: ২০১৯ ইং

View Book

Cadeter Diary

১৯৭৮ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজের ৬টি বছর আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময় ছিলো । সে সময়টা ছিলো আমার কুসুম ফোটার সোনালী দিনগুলি । ক্যাডেট কলেজের পরিবেশ, শিক্ষা, বন্ধুদের সাহচর্য্, শিক্ষকদের দিকনির্দেশনা আমাকে একজন ভিন্ন মানুষরূপে গড়ে তোলে । সেই ক্যাদেট কলেজে পড়ার সময় প্রায় প্রতিদিনি আমার নোটবুকে অত্যন্ত গোপনে কিছু না কিছু লিখে রাখতাম, এবং অত্যন্ত যত্নের সঙ্গে তা লুকিয়েও রাখতাম, কাউকেই ছুতে দিতামনা আমার গোপন ডায়েরিটি । কলেজ থেকে বেরিয়ে যাবার ৩০ বছর পর, আজ স্বেচ্ছায় এ নোটবুকটি প্রকাশ করতে ইচ্ছা হল। এর আগে কলেজের ১৯৭৮-৭৯ সালের এক বছরের ডায়েরিকে আত্মজৈবনিক উপাখ্যানাকারে প্রকাশ করেছিলাম ২০০৮ সালে, নাম ছিলো ক্লাস সেভেন ১৯৭৮ । এবার তাঁর বাদবাকি অংশ নিরেট ডায়েরির আকারেই ছাপিয়ে দিলাম । সঙ্গে যুক্ত করলাম সে সময়ে আমার সহপাঠি ও শিক্ষকদের ছবিও । সঙ্গে কলেজ ক্যাম্পাসের কিছু ছবি পরবর্তি সময়ে তোলা অপরিবর্তিত অবয়বেরই । কিশোর বয়েসে আমি ঠকে ঠকে যা যা শিখেছিলাম, তা থেকে কোন একজনের জন্যও যদি এটা কোন উপকার নিয়ে আসে, আমি মনে করবো আমার সকল গোপন কথা ফাঁশ করে দেয়া স্বার্থক।

বই : ক্যাডেটের ডায়েরি
লেখক : শাকুর মজিদ
বিষয় : আত্মজৈবনিক
প্রথম প্রকাশ : ২৫ শে ডিসেম্বর ২০১৪ ইং
প্রকাশক: অন্যপ্রকাশ

View Book

America : kacher manush durer manush

বই : আমেরিকা: কাছের মানুষ দূরের মানুষ 
লেখক : শাকুর মজিদ 
বিষয় : ভ্রমণ 
লেখক : শাকুর মজিদ 
প্রথম প্রকাশ : ২০০৮ ইং 
প্রকাশক: উৎস প্রকাশন 

View Book

Nobeler Shohor

বই : নোবেলের শহর 
লেখক : শাকুর মজিদ 
বিষয় : ভ্রমণ 
প্রথম প্রকাশ : একুশে বইমেলা ২০১৪ 
প্রকাশক : অন্যপ্রকাশ 

View Book

Nuhas Pollir Ai Sob Dinratri

প্রায় ৩২ বছর ধরে হুমায়ূন আহমেদকে আমি চিনি। কিন্তু তঁঅর কাছাকাছি যাওয়ার সুযোগ হয় ২০০৮ সালের গোড়ার দিকে। তাঁকে নিয়ে দীর্ঘ স্মৃতিচারণ করেছি আমার অপর বই ‘হুমায়ূন আহমেদ : যে ছিল এক মুগ্ধকর’-এ। এ বইটি কেবলমাত্র- নুহাশপল্লীকে ঘিরে আমার ব্যক্তিগত কিছু অনুভূতির প্রকাশ।

নিজের অনুভূতি প্রকাশেল সঙ্গে সঙ্গে নুহাশপল্লীর গাছপালা, ভাস্কর্য, নানারকমের স্থাপনা এবং সেসবকে কেন্দ্র করে হুমায়ূন আহমেদের যাপিত জীবন নুহাশপল্লীতে কেমন ছিল, সেটি প্রকাশের চেষ্টা করেছি।

বইটি প্রকাশের জন্য বন্ধুবর প্রকাশক মাজহারুল ইসলামের ঐকান্তিক আগ্রহ আমার জন্য বাড়তি অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে।

এ বইতে ব্যবহৃত বেশির ভাগ ছবিই আমার তোলা। কিছু ছবি সংগ্রহ করেছি। দু’টো ছবি ইন্টারনেট থেকে নেওয়া। ফটোগ্রাফারের নাম না জানার কারণে নাম দিতে পারি নি। কৃতজ্ঞতা তাদের প্রতি।

শাকুর মজিদ
১৩ জানুয়ারি, ২০১৩

বই: নুহাশপল্লীর এইসব দিনরাত্রি 
লেখক: শাকুর মজিদ 
বিষয়: জীবনী ও স্মৃতিচারণ 
প্রথম প্রকাশ: ২০১৩  ইং 
প্রকাশক: অন্য প্রকাশ 

View Book

Islamer Sthapottodhara

বই: ইসলামের স্থাপত্যধারা 
লেখক: শাকুর মজিদ 
বিষয়: স্থাপত্য বিষয়ক 
প্রথম প্রকাশ: ২০১৩ ইং 
প্রকাশক: শব্দ শৈলী প্রকাশন 

View Book

Humayun Ahmed : je Chilo Ak Mugdhokor

হুমায়ূন আহমেদ ৪০ বছরের বেশি সময় ধরে লেখালেখি, নাট্যনির্দেশনা ও চলচ্চিত্র নির্মাণে ব্যাপৃত ছিলেন। এর মধ্যে প্রায় ৩২ বছর ধরে শাকুর মজিদ তাঁর সঙ্গে মিশেছেন। একটা পর্যায়ে মজিদ ছিলেন মূলত হুমায়ূন আহমেদের ব্যক্তিজীবনের অন্তরঙ্গ অনুরাগী আর কৌতূহলী পর্যবেক্ষক। তাঁর একান্ত নিজস্ব অনুভূতিগুলোই এই বইতে প্রকাশ পেয়েছে। বড় মাপের কোনো মানুষের কথা বলতে গিয়ে তাঁদের কাছের মানুষেরা প্রায়শই অতিশয়োক্তি করে তাঁদের রচনাকে ভারাক্রান্ত করেন, সাধারণ পর্যায় থেকে তুলে তাঁকে মহামানবের স্তরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। শাকুর মজিদ এ ক্ষেত্রে পরিমিতিবোধের প্রকাশ ঘটিয়েছেন। এ বই কেবল স্মৃতিকথাই নয়, এর মধ্যে একজন সাধারণ লেখকের অসাধারণ হয়ে ওঠা এবং তাঁর বিবর্তনের পরিচয় তুলে ধরা হয়েছে।

বই: হুমায়ূন আহমেদ : যে ছিল এক মুগ্ধকর 
লেখক: শাকুর মজিদ 
বিষয়: স্মৃতিচারণ 
প্রচ্ছদ: কাইয়ুম চৌধুরী 
প্রথম প্রকাশ: ২০১৩ ইং 
প্রকাশক: প্রথমা প্রকাশন 

View Book

Leave a Comment